মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:১৮ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ:
রামগঞ্জে ওসি এমদাদুল হকের বিশেষ অভিযান || গ্রেফতার – ৩৪ // ১২৪ পিস ইয়াবা উদ্ধার || LakshmipurPratidin.com আজীবন বহিষ্কার জাকির মোস্তান || রামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারন সভায় সিদ্ধান্ত || LakshmipurPratidin. Com রামগঞ্জে বিস্ফোরক মামলায় নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ৩১ || LakshmipurPratidin.com রামগঞ্জে স্বেচ্ছাশ্রমে সড়ক সংস্কার || LakshmipurPratidin.com রামগঞ্জের নতুন ওসি এমদাদুল হক || LakshmipurPratidin.com রামগঞ্জে প্রতিবন্ধী ও গর্ভবতী মহিলা সহ একই পরিবারের ৪ জনকে হত্যার চেষ্টা  || Lakshmipur Pratidin. Com রামগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধােদের সংবর্ধনা || LakshmipurPratidin.com রামগঞ্জে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার তাগিদ, স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরন করলেন শহিদ কমিশনার || LakshmipurPratidin.com রামগঞ্জে বিএনপি নেতা আলালের কুশপুত্তলিকা দাহ ছাত্রলীগের || Lakshmipurpratidin.com রামগঞ্জে দূর্নীতিবিরোধী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত || LakshmipurPratidin.com

ছোটভাই হত্যা মামলায় বড়ভাই গ্রেফতার || lakshmipurPratidin

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ছোটভাই সেনা সদস্য (অব.) দেলোয়ারকে পিটিয়ে হত্যা মামলার ৫ মাস পর গ্রেফতার হয়েছেন বড়ভাই সেনা সদস্য এমরান হোসেন (অব.)। বুধবার (২৫ নভেম্বর) রাতে চরমোহনা ইউনিয়ন পরিষদের উত্তর রায়পুর গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) দুপুরে এমরান হোসেনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। নিহত দেলোয়ার ও গ্রেফতার এমরান একই এলাকার মৃত ফজলুল করিমের ছেলে।

পুলিশ আরও জানায়, এ বছরের ১৭ জুলাই দুপুরে দেলোয়ার তার বসতঘরের পাশে আম পাড়ছিলেন। এ সময় এমরান ও তার ছেলে ফোরকান বাধা দেন। এতে দুই পরিবারের মধ্যে দা, লাঠি ও রড নিয়ে সংঘর্ষ হলে দেলোয়ার গুরুতর জখম হন। তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রামের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর ১২ দিন পর তিনি মারা যান। পরে দেলোয়ারের লাশ বাড়িতে এনে এমরানসহ তার পরিবার তাড়াতাড়ি দাফনের চেষ্টা করেন। পরে দেলোয়ারের ছেলেরা ও গ্রামবাসী বাধা দিয়ে পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত করেন। এ ঘটনায় দেলোয়ারের ছেলে বাদী হয়ে চাচা এমরানসহ ৫ জনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

অভিযুক্ত এমরান মিয়া বলেন, ‘দুই ভাইয়ের পরিবারের মধ্যে আম পাড়া নিয়ে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে লাঠির আঘাতে দেলোয়ার যে মারা যাবে, তা আমরা বুঝতে পারিনি।’

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল জলিল বলেন, ‘হত্যা মামলার পর সাবেক সেনা সদস্য এমরান মিয়াসহ অন্য আসামিরা পলাতক ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এমরানকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অন্যদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মূল্যবান মতামত লিখুন


© All rights reserved © 2020 Lakshmipurpratidin.com
Design & Developed BY N Host BD